আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট নিরাপদ রাখার এই উপায়টি জেনে নিন


ফেসবুক আপনার সম্পর্কে অনেক কিছুই জানে, আর এ জন্যই আপনার অ্যাকাউন্ট মন্দ মানুষদের প্রধান লক্ষ্যে পরিণত হতে পারে। ফেসবুকের ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকা ঘটনা্টির পর বোঝা গেছে যে শুধু শক্ত পাসওয়ার্ডই আপনার ফেসবুকে শেয়ার করা সবকিছু বা আপনার অ্যাকাউন্টকে যে নিরাপদ রাখবে, বিষয়টা ঠিক তা নয়। এর পরিবর্তে গবেষকেরা ব্যবহারকারী এবং তাঁদের বন্ধুদের সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহের জন্য একটি অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করছেন।সিনেটের এক নতুন প্রতিবেদনে উঠে এসেছে যে ফেসবুকের প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ এই প্রাইভেসি ইস্যুটি সম্পর্কে বেশ ভালোভাবেই জানেন, যা ফেসবুকের জন্য আরেকটি কালো অধ্যায়। ফেসবুকের অ্যাকাউন্টের নিরাপত্তা জোরদার করতে খুব বেশি সময়ের প্রয়োজন হবে না। ফেসবুক নিজেই ব্যবহারকারীর অ্যাকাউন্টের নিরাপত্তা জোরদার করার সেটিংস রেখে দিয়েছে, আপনার শুধু দরকার সেই সেটিংস আপনার প্রিয় ফেসবুক অ্যাকাউন্টেও করে রাখা এবং নিয়মকানুনগুলো মেনে চলা। তা করতে চাইলে সবচেয়ে ভালো হবে ফোন থেকে ফেসবুকে না ঢুকে (লগ-ইন) ডেস্কটপ বা ল্যাপটপ কম্পিউটার থেকে ঢোকেন তবেই। সমস্যা হচ্ছে ফেসবুক নিয়মিত তাদের সেটিংস বদল করে। তাই জানা থাকতে হবে কীভাবে আপনারা নিরাপদ থাকবেন ফেসবুকে।
ফেসবুক আপনার সম্পর্কে অনেক কিছুই জানে, আর এ জন্যই আপনার অ্যাকাউন্ট মন্দ মানুষদের প্রধান লক্ষ্যে পরিণত হতে পারে। ফেসবুকের ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকা কেলেঙ্কারির পর বোঝা গেছে যে শুধু শক্ত পাসওয়ার্ডই আপনার ফেসবুকে শেয়ার করা সবকিছু বা আপনার অ্যাকাউন্টকে যে নিরাপদ রাখবে, বিষয়টা ঠিক তা নয়। এর পরিবর্তে গবেষকেরা ব্যবহারকারী এবং তাঁদের বন্ধুদের সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহের জন্য একটি অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করছেন।সিনেটের এক নতুন প্রতিবেদনে এসেছে যে ফেসবুকের প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ এই প্রাইভেসি ইস্যুটি সম্পর্কে বেশ ভালোভাবেই জানেন, যা ফেসবুকের জন্য আরেকটি কালো অধ্যায়।তবে এখন আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট-টি নিরাপত্তার একটা আবরণ দিয়ে মুড়ে ফেলতে পারেন। তবে সেইক্ষেত্রে কি কি করনীয় তা জেনে নেওয়া যাকঃ-

শক্তিশালী পাসওয়ার্ড ও টু-ফ্যাক্টর অথেনটিকেশন ::-
একটা ফেসবুক অ্যাকাউন্ট-টি নিরাপত্তা নিশিচিত করতে প্রথমেই যে কাজটি করা দরকার বা যা করতে হবে তা হচ্ছে, একটি শক্তিশালী বা হাই সিকিউরিটি পাসওয়ার্ড বেছে নেওয়া এবং দুই স্তর প্রমাণীকরণ (টু-ফ্যাক্টর অথেনটিকেশন)-প্রক্রিয়াটি পুরোপুরিভাবে সক্রিয় করা। পাসওয়ার্ডের ক্ষেত্রে অবশ্যই বিশেষ চিহ্ন (স্পেশাল ক্যারেক্টার) যেমন !@#$%^&* যুক্ত করতে হবে, এইক্ষেত্রে মনে রাখতে হবে যে যখন আপনি আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট-এর জন্য একটি শক্তিশালী পাসওয়ার্ড তৈরি করবেন বা পুরোন পাসোয়ার্ড পরিবর্তন করে একটি শক্তিশালী পাসওয়ার্ড বানাবেন তখন আপনি ওই পাসোয়ার্ড-এ
- ১) আপনার পুরো নাম,
২) আপনার জন্ম তারিখ
৩) আপনার মোবাইল নাম্বার- ব্যাবহার করবেন না,
আপনি আপনার পাসওয়ার্ড হিসেবে এই তিন ধরনের জিনিসগুলি মিশ্রণে একটি পাসওয়ার্ড বানিয়ে নিন। এবং যা সহজে অনুমান করা যায় না সেইভাবে আপনার,অ্যাকাউন্টের পাসওয়ার্ডটি তৈরি করে ফেলুন।আপনাকে মনে রাখতে হবে যে - যদি আপনার  আগের অন্য কোনো অ্যাকাউন্ট থেকে থাকে তাহলে এই অ্যাকাউন্টের সঙ্গে আগের অন্য কোনো অ্যাকাউন্ট মিলিয়ে রাখা একই পাসওয়ার্ড ব্যবহার করা যাবে না বা ব্যবহার করবেন না।

এই পুরো সেটিংসটি কীভাবে এবং কোথা থেকে করবেন ?
https://fb.com/settings-এর বাঁদিকের মেনুতে থাকা Security and Log-in মেনু থেকে লগইন অংশের Change Password অপশনে গিয়ে। নতুন পাসওয়ার্ড সেট করা হয়ে গেলে টু-ফ্যাক্টর অথেনটিকেশন চালু করুন। এটি পাবেন এই পেজেরই Two-Factor Authentication সেকশনে। এটি সক্রিয় করতে চাইলে আপনার ফেসবুকের সেই সিকিউর পাসওয়ার্ড দিতে হবে। এর কাজ হচ্ছে যখনই আপনি বা আপনার অ্যাকাউন্ট থেকে কেউ লগইন করতে চাইবে, আপনার আগে থেকে দেওয়া ফোন নম্বরে একটি সংকেত বা কোড চলে আসবে। সেই কোড দিলেই শুধু আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট লগইন হয়ে যাবে।

মাধ্যম- ইন্টারনেট সংগৃহীত তথ্য

Have any Question or Comment?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: